টেটাযুদ্ধ করতে গিয়ে নাজিমুদ্দিন ও ইকবাল বাহিনীর ২জন টেটাও ককটেল সহ জনতার হাতে আটক

0
110

মাধবদীর চরদিঘলদীতে অাবারো টেটাযুদ্ধ করতে গিয়ে নাজিমুদ্দিন ও ইকবাল বাহিনীর ২জন টেটাও ককটেল সহ জনতার হাতে অাটক
নরসিংদী সংবাদ দাতা। নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদী থানার চরদীঘলদী ইউনিয়নে অাধিপত্য বিস্তার করার জন্য নাজিমুদ্দিন, ইকবাল ও শামীম বাহিনীর লোকেরা এই ইউনিয়নের দোয়ানী নোয়াবপুর-নোয়াকান্দী গ্রাম দখল করার জন্য কয়েক শত লোক তাদের সাথে টেটা বল্লম ককটেল ওদেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করতে গিয়ে জনতার হাতে ২ জন অাটক হয়েছে । সাথে উদ্ধার করা হয়েছে, ২৩ টি টেটা, ২০ টি অবিস্ফোরিত ককটেল, বিস্ফোরিত ককটেলের দশ টুকরো অংশ ও ছোট -বড় বিভিন্ন আকারের ২০ টি পাথরের টুকরো। অাটককৃত ২ জনকে গ্রামবাসী গনপিটুনী দিয়ে মাধবদী থানা পুলিশ কে সংবাদ দিলে পুলিশ ঘটনাস্হলে গিয়ে তাদের গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে অাসে।।খোজ নিয়ে জানাযায় কয়েক মাস অাগে দোয়ানী বাজারে দেলোয়ারের ও সহিদ মেম্বারের মার্কেট ও বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা কেন্দ্র করে গ্রাম বাসির প্রতিরোধের মুখে নাজিমুদ্দিন, ইকবাল ও শামীম বাহিনীর লোকেরা গ্রাম থেকে পালিয়ে যায় । দির্ঘদিন পলাতক থাকার পর একই ইউনিয়নের অনন্তরাম গ্রামে বসবাস করে শামীমের নেতৃত্বে হাজার হাজার টেটা ও ককটেল বানিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে গত ১৬ জুলা ই উল্লেখিত গ্রাম দখল করার জন্য নাজিমুদ্দিন, ইকবাল ওশামীম কয়েক শত লোক নিয়ে হাজার হাজার টেটা, বল্লম ককটেল ও দেশীয় অস্ত্র সশ্র নিয়ে নোয়াকান্দী ও নোয়াবপুর ঈদগা মাঠে প্রস্তুতি নেয়ার সময় অালী হোসেন নামে এক ব্যাক্তি দেখে গ্রাম বাসী কে খবর দিতে চাইলে সন্ত্রাসীরা তার উপড় হামলা চালায় এই সংবাদ গ্রামবাসি জানতে পেরে গ্রামের সব মসজিদের মাইক দিয়ে ঘোষনা দিয়ে চারদিক দিক থেকে তাদের প্রতিরোধ বা অাটক করার চেষ্টা করলে সন্ত্রাসীরা বেশ কয়েক টি ককটেল বিস্ফারণ ঘটিয়ে পালিয়ে গেলেও তাদের সাথে থাকা ২ জন কে গ্রাম বাসি অাটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।অাটক কৃতরা হলো হারিছ ও অাল অামিন । এব্যাপারে অালী হোসেন বাদী হয়ে মাধবদী থানায় ১ টি মামলা দায়ের করেছেন।
মামলা নম্বর ১৬ তা ১৭ /৭ ২০২০ ইং। মামলায় ৪৩ জনের নাম উল্লেখ করে ১০০ হতে ১৫০ জন কে অজ্ঞাত নামা আসামি করা হয়েছে। গ্রেফতার কৃত দুই ব্যাক্তি কে পুলিশ প্রাথমিক চিকিৎসা করে নরসিংদী অাদালতে প্রেরন করেছেন।

রিপ্লাই লিখতে চাই