ইউপি চেয়ারম্যান কতৃৃক পালিত মেয়েকে ধর্ষণ

0
32
নাজাত ডেক্সঃইউপি চেয়ারম্যান পালিত মেয়েকে মদ খেয়ে ধর্ষণের পরে হত্যা করে,এর পর কুলখানিতে দাওয়াত চেয়েছে চেয়ারম্যান।
ইউপি চেয়ারম্যান পালিত মেয়েকে মদ খেয়ে ধর্ষণ করার চেষ্টা করলে মেয়েটি চেয়ারম্যানের স্ত্রীর কাছে বিচার দেয়, চেয়ারম্যানের স্ত্রী চেয়ারম্যানকে সতর্ক করলে কিছুদিন পর আবার মদ খেয়ে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে হত্যা করে। বিষয়টি মীমাংসার জন্য চেয়ারম্যান নিজেই মেয়ের মাকে টাকার দিয়ে বলে মেয়ের কুলখানি করে চেয়ারম্যানকে দাওয়াত দিতে চেয়ারম্যান মেয়ের মাকে খুশি (টাকা দিয়ে মীমাংসা) করবে৷
গত ৯ মে চেয়ারম্যানের মোহনগঞ্জের বাসায় রহস্যজনক মৃত্যু হয় মারুফার। পুলিশকে না জানিয়ে নিজেই মারুফাকে নিয়ে হাসপাতালে যান মুর্শেদ কাঞ্চন। বিষয়টি সন্দেহজনক মনে হলে ও মারুফার শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পেয়ে এ ঘটনায় মারুফার মা আকলিমা আক্তার ১১ মে তার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে উল্লেখ করে চেয়াম্যানের বিরুদ্ধে মোহনগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগ আমলে নিয়ে মামলা নেওয়া হয়। ওইদিনই চেয়ারম্যান মুর্শেদ কাঞ্চনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরদিন ১২ মে তাকে আদালতে পাঠায় পুলিশ। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্য বেশ সৃষ্টি করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সঠিক বিচারের দাবি তুলে মানুষ। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা ধামাচাপা দেয়ারও অভিযোগ তুলে অনেকে।
চেয়ারম্যান শাহ মাহবুবকে বারহাট্টা থানা পুলিশ আটক করার পর আবার জামিনে বের হয়ে যায়।

 

রিপ্লাই লিখতে চাই